২৫ নভেম্বর ২০২০ ০১:৪৬ অপরাহ্ন     |    ই-পেপার     |     English
২৫ নভেম্বর ২০২০   |  ই-পেপার   |   English
নাস্তিক মুরতাদ ও কাদিয়ানীরা হেফাজতের শত্রুঃ সিলেটে বাবুনগরী
নাস্তিক মুরতাদ ও কাদিয়ানীরা হেফাজতের শত্রুঃ সিলেটে বাবুনগরী

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

নভেম্বর ২১, ২০২০ ০৭:৪৬ পিএম

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন,  হেফাজতে ইসলাম কোন রাজনৈতিক সংগঠন নয়। ইসলামের হেফাজত, ইসলামের সকল কর্মসূচিই হেফাজতের কর্মসূচী। যারা আল্লাহ ও তার রাসুল (সা.) এর বিরুদ্ধে কটুক্তি করে তাদের কবর রচনা করতেই হেফাজতের জন্ম হয়েছে। তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আমরা আপনার শত্রু নই । যে সকল নাস্তিকরা আপনার ঘাড়ে চেপে বসে আসে সেই নাস্তিক মুরতাদ ও কাদিয়ানীরা হেফাজতের শত্রু। 

শনিবার বিকালে সিলেটের ঐতিহাসীক রেজিষ্ট্রি মাঠে ফ্রান্সে মহানবী (সা:) এর অবমাননার প্রতিবাদে হেফাজতের বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন। 

এসময় কাদিয়ানিদের সাংবিধানিক ভাবে ‘কাফের’ ঘোষণা করার দাবি জানিয়ে বলেন, ‘কাদিয়ানিদের সাংবিধানিক ভাবে কাফের ঘোষণা না করার কারণে তারা মক্কা-মদিনা যেতে পারে। এতে মক্কা -মদিনার পবিত্রতা নষ্ট হয়। তাই আমি কিছুদিন আগেও প্রধানমন্ত্রীকে সাক্ষাৎ করে বলেছি কাদিয়ানিদের সাংবিধানিক ভাবে কাফের ঘোষণা করতে হবে।’ ‘প্রধানমন্ত্রী দেশ মদিনার সনদে চালানোর ঘোষণা দিলেও বাস্তবে কি তা হচ্ছে। দেশ কি মদিনার সনদে চলছে?।’

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাবুনগরী বলেন, ‘হিন্দুরাও কাফের। তাহলে এখন আপনাদের প্রশ্ন আসতে পারে তাহলে হিন্দুদের কাফের ঘোষণার কথা বলছি না কেন। আমরা হিন্দুদের কাফের ঘোষণার দাবি করছি না কারণ তারা মুসলমানদের বেশ ধারণ করে না। কিন্তু কাদিয়ানিরা মুসলমানদের বেশ ধারণ করে। তাই তারা ইসলামের সবচেয়ে বড় শত্রু। তাই আমাদের দাবি হলো কাদিয়ানিদের কাফের ঘোষণা করা হোক। এর পর তারা এ দেশে সংখ্যালঘু হিসেবেই থাকুক। আমাদের কোন অসুবিধা নেই। হিন্দুরাও থাকছে। আমাদের কোন অসুবিধা হচ্ছে না।’

এসময় বাবুনগরী সিলেটের নারীদেরকেও হেফাজতে ইসলামের সাথে থাকার আমন্ত্রণ জানান।

শনিবার বেলা ১২ টায় শুরু হওয়া সম্মেলনে যৌথ ভাবে সভাপতিত্ব করেন আংগুরা মোহাম্মদপুর মাদ্রাসার মুহতামিম জিয়া উদ্দিন, জামেয়া নুরিয়া ইসলামিয়া ভার্তখলা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মৌজুদ্দিন আহমদ, কেন্দ্রীয় নায়বে আমির মুহিবুল হক গাছবাড়ি, রেঙ্গা মাদ্রাসার মুহতামিম মুহিউল ইসলাম বুরহান৷

এর আগে সকাল থেকে সিলেট জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে হেফাজতে ইসলামির অনুসারীরা মিছিলসহকারে সম্মেলনস্থলে উপস্থিত হতে থাকেন। বেলা বাড়ার সাথে সাথে রেজিস্ট্রারি মাঠসহ কোর্টপয়েন্ট এলাকা লোকে লোকারণ্য হতে থাকে। পরে বিকাল ৫ টায় হেফাজতে ইসলামির আমির জুনায়েদ বাবুনগিরীর বক্তব্যের মধ্যদিয়ে সম্মেলনের সমাপ্তি হয়।

এন/সি