২১ জানুয়ারী ২০২১ ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন     |    ই-পেপার     |     English
২১ জানুয়ারী ২০২১   |  ই-পেপার   |   English
পীরগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাঙচুর
পীরগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাঙচুর

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

জানুয়ারী ০৩, ২০২১ ১০:২৬ এএম

আবারো বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাঙচুর। এবার ঘটনাটি ঘটেছে ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জে। জাতির জনক শেখ মুজিবর রহমানের ম্যুরাল ভাঙচুর করার অভিযোগে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, গত শুক্রবার বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ভাঙচুর চালায় নুর আলম। সে রঘুনাথপুরের বাসিন্দা। প্রতিকৃতি ভাঙা নিয়ে জেরা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা প্রদীপ কুমার রায়। প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জানান, ওই ব্যক্তি শুক্রবার বিকেলে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালের একটি অংশে ইট দিয়ে আঘাত করতে থাকেন। একপর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালের ডান দিকে প্রায় দেড় ফুট ভেঙে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ওই ব্যক্তিকে হাতেনাতে আটক করে। কেন এই ভাঙচুর সে কথা জানতে তাকে জেরা করা হচ্ছে। যদিও, অনেকেই মনে করছেন এর নেপথ্যে রয়েছে মৌলবাদীদের উসকানি। আটক ব্যক্তি কোনও মৌলবাদী সংগঠনের সদস্য কি না, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বর মাসে কুষ্টিয়ায় শেখ মুজিবর রহমানের মূর্তি ভেঙে ফেলা হয়। ঘটনার পর থেকেই  হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে সরব হন মুক্তমনা মানুষেরা । ভাষ্কর্যবিরোধী বক্তব্য দেওয়ার দায়ে দেশের তিন শীর্ষ মুসলিম ধর্মীয় নেতা হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী ও সৈয়দ ফয়জুল করিম এবং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস নেতা মাওলানা মুহাম্মদ মামুনুল হকের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলাও করা হয়। শুধু তাই নয়, বিপ্লবী বাঘা যতীনের মূর্তিতেও ভাঙচুর চালানো হয়।

দেশের শীর্ষস্থানীয় উলামা, মাশায়েখ ও মুফতিরা যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে ভাস্কর্য তৈরির বিরোধিতা করেছেন, বলেছেন, মানুষ বা অন্য যে কোনও প্রাণীর ভাস্কর্য অথবা মূর্তি নির্মাণ, স্থাপন ও সংরক্ষণ সন্দেহাতীতভাবে শিরিক যোগ্য কঠোরতম অপরাধ। এ ধরনের শরিয়ত বিরোধী কাজ মুসলমানদের জন্য অনুসরণযোগ্য নয়। যারা বলছেন মূর্তি ও ভাস্কর্য এক নয়, তারা ভুল বলছেন। হীন স্বার্থে সত্য গোপন করছেন। 

এস/সি/ইউ