০৪ মার্চ ২০২১ ০৩:৪৪ পূর্বাহ্ন     |    ই-পেপার     |     English
০৪ মার্চ ২০২১   |  ই-পেপার   |   English
আজ শাবিপ্রবির জন্মদিন: গৌরবের তিন দশক পূর্তি
আজ শাবিপ্রবির জন্মদিন: গৌরবের তিন দশক পূর্তি

কাসমির রেজা

ফেব্রুয়ারী ১৩, ২০২১ ১০:৫৩ এএম



আজ ১৩ই ফেব্রুয়ারি, দেশের প্রথম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরুর দিন।  ১৯৯১ সালের এই দিনে সিলেট শহর থেকে পাঁচ কিলোমিটার দুরে  কুমারগাঁও এ ৩২০ একর জায়গায় ৩টি বিভাগে ১২০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। ভিত্তি প্রস্তর স্থাপিত হয় ১৯৮৬ সালের ২৫ আগস্ট ।

সবুজের ঢেউ খেলানো মনমাতানো প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ভরপুর ক্যাম্পাসের বিশ্ববিদ্যালয়টির  

এই তিন দশকে বলার মত অর্জন অনেকগুলো।‌ এই করোনা মহামারীর কালেও দেশের সবচেয়ে অগ্রসর বিশ্ববিদ্যালয় ছিল শাবিপ্রবি।  সিলেট অঞ্চল থেকে সংগৃহীত নমুনা থেকে নতুন ৩০ ধরনের পরিবর্তিত করোনাভাইরাসের সন্ধান ও জীবনরহস্য উন্মোচন করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং ও বায়োটেকনোলজি বিভাগের একদল গবেষক। করোনা কালে প্রথম অনলাইনে ক্লাস শুরু করে। স্বাস্থ্য বিধি মেনে পরীক্ষা ও হয়েছে। গবেষণায় দেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে শাবিপ্রবি। বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদ এর নেতৃত্বে হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। 

১৯৯৬-৯৭ সেশন থেকে দেশে প্রথমবারের মত স্নাতক কোর্সে আমেরিকান সেমিস্টার পদ্ধতির প্রবর্তন করে শাবিপ্রবি। প্রতিষ্ঠানটি দেশের সর্বপ্রথম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে পুরো ক্যম্পাসে ওয়াই-ফাই চালু করে। বাংলাদেশে সর্বপ্রথম আই পি ই এবং পি এম ই তে অনার্স কোর্সের চালু করে সাস্ট। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশে প্রথমবারের মত এসএমএসভিত্তিক স্বয়ংক্রিয় ভর্তি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন পদ্ধতি উদ্ভাবন করে ১৩ সেপ্টেম্বর ২০০৯ তারিখে। বর্তমানে বাংলাদেশে সবগুলো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কার্যক্রমসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হচ্ছে যা বাংলাদেশের জন্য একটি মাইলফলক। এ উদ্ভাবনের জন্য, বিশ্ববিদ্যালয় ২০১০ সালে দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর মধ্যে অনুষ্ঠিত একটি প্রতিযোগিতায় ‘এম-বিলিয়ন্থ পুরস্কার’, ই-কন্টেন্টে ‘জাতীয় পুরস্কার’ এবং ‘আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড- ২০১০’ লাভ করেছে। এই যুগান্তকারী আবিস্কারের স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ সরকার শাবিপ্রবিতে ‘ড. ওয়াজেদ মিয়া আইআইসিটি ভবন’ নির্মাণ করেছে। ২০১৩ সালে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তৈরি বাংলাদেশের একমাত্র সার্চ ইঞ্জিন ‘পিপীলিকা’! বাংলাদেশে প্রথম বারের মত সেকেন্ড মেজর কোর্সের প্রবর্তন করা হয় শাবিপ্রবিতে। তাছাড়া চালকবিহীন বিমান ড্রোন নিয়ে দেশে প্রথমবারের মত গবেষণা এবং তা সফলভাবে উড্ডয়ন করা হয় শাবিপ্রবিতে।  দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর মধ্যে সর্বপ্রথম অনলাইন লেনদেনের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন ও কোর্স ফি জমা দেবার সুযোগ করেছে শাবিপ্রবি। দেশের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসের অবস্থান জিপিএস প্রযুক্তির নিজেদের মোবাইল থেকেই জানতে পারা ইত্যাদি অর্জন রয়েছে শাবিপ্রবির!রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত বিশ্বের সর্ববৃহৎ প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা ‘এসিএম আন্তর্জাতিক কলেজিয়েট প্রোগ্রামিংয়ে’র চূড়ান্ত পর্বে বাংলাদেশ থেকে গত কয়েক বছর টানা অংশগ্রহণ করেছে শাবিপ্রবির টিম। তাছাড়া প্রোগ্রামিং কনটেস্টে বরাবরই দেশসেরা সাস্ট সি এস ই। শাবিপ্রবিতে ম্যাথ অলিম্পিয়াড/ ইনফরমেট্রিক্স অলিম্পিয়াডে জাতীয় পর্যায়ে পুরষ্কৃত মেধাবীদের ভর্তি পরীক্ষায় লিখিত পরীক্ষা ব্যতীত ভর্তির সুযোগ দিচ্ছে।  দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের জন্য বাংলা ভাষার প্রথম সফটওয়্যার ‘মঙ্গল দ্বীপ’ উদ্ভাবন করা হয়েছে শাবিপ্রবিতে। স্থাপন হয়েছে ‘আধুনিক ভাষা ইন্সটিটিউট’ । 

কর্মস্থলেও দেশ-বিদেশে সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন শাবিপ্রবির গ্রাজুয়েটরা।! গুগল, নাসা, ফেসবুক সহ বিশ্বের স্বনামধন্য সব প্রতিষ্ঠানে সাস্টিয়ানরা কর্মরত রয়েছে। তাছাড়া দেশ বিদেশের নামিদামি সব বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, প্রশাসনের সর্বোচ্চ স্তরেও সাস্টিয়ানদের সংখ্যা উল্লেখ করার মতো। 

শুধু একাডেমিক কার্যক্রমেই নয় সাস্টিয়ানরা এগিয়ে আছে সহশিক্ষা কার্যক্রমেও। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে রয়েছে অর্ধশতাধিক সামাজিক, সাংস্কৃতিক স্বেচ্ছাসেবী ও ক্রীড়া সংগঠন । সারা বছরই নাটক, কনসার্ট, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, সাহিত্য আসর সহ ব্যাতিক্রমধর্মী সব আয়োজনে মুখরিত থাকে শাবি ক্যাম্পাস।  বিশ্ববিদ্যালয়ের আশেপাশের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষা প্রদান, বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানবিক সহায়তা প্রদানে সাস্টিয়ানরা কাজ করে থাকে। 

আজ ২৯তম বছর পেরিয়ে ৩০ তম বছরে পদার্পণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। ত্রিশ তম জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাই বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ও সাবেক ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে।

লেখক: শাবিপ্রবি ৬ষ্ঠ ব্যাচের ছাত্র ও অর্থনীতি বিভাগ এ্যালামনাই এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক।

ই/ডি