এপ্রিল / ১৮ / ২০২১ ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

এপ্রিল / ০৫ / ২০২১
১০:২৭ অপরাহ্ন

আপডেট : এপ্রিল / ০৫ / ২০২১
১০:২৭ অপরাহ্ন


মৌলভীবাজারে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে কম

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে এক সপ্তাহের লকডাউনের প্রথমদিনে মৌলভীবাজারে স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না বেশির ভাগ মানুষ। লকডাউনের প্রথমদিনে জেলাজুড়ে এমন দৃশ্যই চোখে পড়ে।
মার্কেট ও শপিংমল বন্ধ থাকলেও ছোট ছোট দোকান খোলা থাকতে দেখা যায়। দূরপাল্লার গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও ছোট ছোট যানবাহন ছিলো চোখে পড়ার মতো। বিশেষ করে রাস্তায় বের হওয়া ছোট যানবাহনে গাদাগাদি করে যাত্রী পরিবহন করতে দেখা যায়।
কাঁচাবাজারগুলোতেও দেখা গেছে একই চিত্র। ঘর থেকে বের হওয়া বেশিরভাগ মানুষ মাস্ক ছাড়াই বের হয়েছেন। নিত্য প্রয়োজনীয় কেনাকাটার সময় নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখছেন না। দোকানগুলোতেও নেই সে ব্যবস্থা। ফার্মেসি থেকে কাঁচাবাজার কোথাও নেই স্বাস্থ্যবিধির বালাই। অনেক ক্রেতা ও বিক্রেতাকে বেচা কেনা করার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে দেখা যায়নি। অনেকের মাস্ক থাকলেও ব্যবহারে উদাসীন বা নির্দিষ্ট স্থান থেকে নামিয়ে থুতনিতে রাখতে দেখা গেছে।
এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান ও জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া জানান, লকডাউনের সময় স্বাস্থ্যবিধি না মানলে ও মাস্ক ছাড়া ঘর থেকে বের হলেই আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তারা জানান, ইতোমধ্যে মৌলভীবাজার জেলায় করোনা সংক্রমনের হার সারাদেশের তুলনায় অনেক বেশি। এখন থেকে সবাই সচেতন না হলে করোনা মোকাবেলা করা কঠিন হয়ে পড়বে। তাই ঘর থেকে বের হওয়ার সময় বাধ্যতামূলক মাস্ক নিয়ে বের হতে হবে। করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে সবাইকে সরকারের বেঁধে দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা জরুরি। করোনার সংক্রমণ রোধে লকডাউন জারি করেছেন সরকার। একই সাথে দিয়েছেন ১১ দফা নির্দেশনা। এই নির্দেশনা দেওয়ার একটাই উদ্দেশ্য সংক্রমণ রোধ করা। কিন্তু স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে মানুষের উদাসীনতায় সংক্রমণ ধীরে ধীরে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। নিজেদের জীবন বাচাঁতে এ বিষয়ে সবাইকে আরও সচেতন হয়ে চলাফেরা প্রয়োজন।

এম/আর

মৌলভীবাজার