জুন / ১৭ / ২০২১ ১২:৪৮ অপরাহ্ন

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

জুন / ০৩ / ২০২১
০১:২৯ পূর্বাহ্ন

আপডেট : জুন / ১৭ / ২০২১
১২:৪৮ অপরাহ্ন

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে অগ্রাধিকার দিয়ে জীবন-জীবিকার বাজেট আজ



36

Shares

রেকর্ড পরিমাণ বাজেট ঘাটতি নিয়ে সরকারের আয় বাড়ানোর ক্ষেত্রে নানা সীমাবদ্ধতা থাকলেও সেই সীমিত সম্পদ নিয়েই আগামী এক বছরের পরিকল্পনা সাজিয়েছেন তিনি। এবারই প্রথম বাজেট ঘাটতি মোট জিডিপির ৬ শতাংশ অতিক্রম করতে যাচ্ছে। তার পরও বিশাল ব্যয়ের লক্ষ্য নিয়ে কৃষক, পেশাজীবী, শ্রমজীবী, দিনমজুর, ব্যবসায়ীসহ সব পক্ষকেই সন্তুষ্ট করতে মরিয়া অর্থমন্ত্রী। এজন্য করের জাল বিস্তৃত করে এবং নতুন করের বোঝা না চাপিয়ে সাধ ও সাধ্যের সমন্বয় ঘটানোর বাজেট আজ জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করবেন তিনি। ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটের আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। করোনাভাইরাস পরিস্থিতি আমলে নিয়ে এ বাজেটে সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে স্বাস্থ্য খাতকে।

এ ছাড়া আগামী বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ বহাল থাকছে। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় থাকছে বিশেষ বরাদ্দ। ব্যবসা-বাণিজ্য চাঙা করতে করপোরেট করহার কমানো হচ্ছে। আওতা বাড়বে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির। বিভিন্ন খাতে চলমান কর অবকাশের মেয়াদ ও আওতা বাড়ানো হচ্ছে। গতকাল অর্থমন্ত্রীর দফতর থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আগামী বাজেটে প্রাধিকার পাবে দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী। ‘জীবন-জীবিকায় প্রাধান্য দিয়ে সুদৃঢ় আগামীর পথে বাংলাদেশ’ শিরোনামের এবারের বাজেট প্রস্তুত করা হয়েছে সরকারের অতীতের অর্জন এবং উদ্ভূত বর্তমান পরিস্থিতির সমন্বয়ে। এবারের বাজেটে সংগত কারণেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য খাতে। পাশাপাশি কভিড-১৯ মহামারী মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজগুলোর বাস্তবায়ন, কৃষি খাত, খাদ্য উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনাকে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। অর্থবছরের পুরো সময়জুড়েই থাকবে সরকারের নানা ধরনের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি, বাড়ানো হবে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতা। এতে আরও বলা হয়, বাজেটকে অধিকতর অংশগ্রহণমূলক করার লক্ষ্যে অর্থ বিভাগের ওয়েবসাইট www.mof.gov.bd-এ বাজেটের সব তথ্য ও গুরুত্বপূর্ণ দলিল যে কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান পাঠ ও ডাউনলোড করতে পারবে এবং দেশ বা বিদেশ থেকে ওই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফিডব্যাক ফরম পূরণ করে বাজেট সম্পর্কে মতামত ও সুপারিশ প্রেরণ করা যাবে। প্রাপ্ত সব মতামত ও সুপারিশ বিবেচনা করা হবে। জাতীয় সংসদ কর্তৃক বাজেট অনুমোদনের সময় ও পরে তা কার্যকর করা হবে।

বাজেট শুধু আয়-ব্যয়ের হিসাবই নয়, যে কোনো রাজনৈতিক সরকারের উন্নয়নের ফিরিস্তিও। সে আলোকে বাজেট বক্তৃতাও সাজিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। এটি আ হ ম মুস্তফা কামালের তৃতীয় এবং বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের টানা ১৩তম বাজেট। স্বাভাবিকভাবেই দীর্ঘ এক যুগের সাফল্য-ব্যর্থতার চিত্র থাকবে বাজেট বক্তৃতায়। শুধু তাই নয়, আগামী বছরটি কীভাবে চলবে, জনগণকে কষ্ট না দিয়ে কীভাবে আয়বর্ধক কর্মসূচি নেওয়া যায় তারও পরিকল্পনা করা হয়েছে।

প্রায় দেড় বছর ধরে চলা করোনাভাইরাস মহামারীর ফলে দেশের বেশির ভাগ মানুষের আয় কমেছে। নতুন করে দরিদ্র হয়েছেন আড়াই কোটি মানুষ। কর্মহীন হয়ে পড়েছেন লাখ লাখ লোক। ফলে বাড়ানো হচ্ছে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতা। একইভাবে কর্মহীনদের কাজের ব্যবস্থা করে দিতে থাকছে পৃথক কর্মসূচিও, যা অর্থমন্ত্রী তাঁর বাজেট বক্তৃতায় তুলে ধরবেন।

বিশাল আকারের এ বাজেটে সর্বাধিক গুরুত্ব পাবে মানুষের জীবন ও জীবিকা। করোনা মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত সবাইকে কিছু না কিছু দেওয়ার চেষ্টা করবেন অর্থমন্ত্রী। করোনা মহামারীর কারণে মানুষের আয় যেমন কমেছে, তেমন সরকারেরও আয় কমেছে। ফলে রাজস্ব ঘাটতি বেড়েছে। ফলে বাজেট ঘাটতিতে সৃষ্টি হবে নতুন রেকর্ড। আর সে ঘাটতি মোকাবিলায় এবার কৌশল পরিবর্তন করে অভ্যন্তরীণ উৎসের চেয়ে বৈদেশিক উৎসের প্রতি নির্ভরতা বাড়ানোর চেষ্টা করবেন অর্থমন্ত্রী। নতুন করে করের জাল বিস্তৃত করে রাজস্ব বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে এনবিআর। আগামী অর্থবছরের বাজেটের মোট আকার ধরা হচ্ছে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটের মূল আকার ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকা। অবশ্য করোনা বাস্তবতায় সংশোধিত বাজেটে তা কমিয়ে ৫ লাখ ৩৮ হাজার ৯৮৩ কোটি টাকা করা হয়েছে। বিশাল পরিমাণ এ ব্যয়ের বিপরীতে মোট আয় ধরা হচ্ছে ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা। চলতি অর্থবছর মোট আয় ধরা হয় ৩ লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা। সে হিসেবে আয় বাড়ছে ১১ হাজার কোটি টাকা। মোট আয়ের মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) আয় ধরা হচ্ছে ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। এ ছাড়া আগামী বাজেটে এনবিআর-বহির্ভূত কর থেকে আসবে ১৬ হাজার কোটি টাকা। আর কর ছাড়া প্রাপ্তি ধরা হচ্ছে ৪৩ হাজার কোটি টাকা। আগামী অর্থবছরে বৈদেশিক অনুদান পাওয়ার পরিমাণ ধরা হচ্ছে ৩ হাজার ৪৯০ কোটি টাকা। আগামী অর্থবছরের বাজেটে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ২ শতাংশ। চলতি বাজেটে প্রবৃদ্ধির এ হার ধরা হয় ৮ দশমিক ২ শতাংশ। মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৩ শতাংশের মধ্যে ধরে রাখার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। আগামী অর্থবছরে মোট জিডিপির আকার ধরা হচ্ছে ৩৪ লাখ ৮২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। বাজেটে মোট উন্নয়ন ব্যয় ধরা হচ্ছে ২ লাখ ৩৭ হাজার ৭৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) ধরা হয়েছে ২ লাখ ২৫ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা, যা এরই মধ্যে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি) অনুমোদন দিয়েছে। চলতি বছরের বাজেটে এডিপির আকার ধরা হয়েছে ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা।

সর্বাধিক গুরুত্ব স্বাস্থ্য খাতে : আগামী বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা। এটি মোট বাজেটের ৭ দশমিক ৪ শতাংশ। চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে ২৯ হাজার ২৪৭ কোটি টাকার বরাদ্দ রয়েছে। স্বাস্থ্য খাতের বিনিয়োগ বাড়াতে আগামী বাজেটে নতুন করে কর অবকাশসুবিধা দেওয়া হচ্ছে। রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রাম, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ এবং বিভাগীয় শহরের বাইরে হাসপাতাল-ক্লিনিক নির্মাণে বিনিয়োগ করলে ১০ বছরের কর অবকাশসুবিধা দেওয়া হতে পারে। ২০৩১ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত এ সুযোগ মিলবে। পাশাপাশি সরকারি সব হাসপাতালকে অত্যাধুনিক করা হবে। আইসিইউ, ভেন্টিলেটরসহ করোনা মোকাবিলার পর্যাপ্ত সামগ্রী কেনা হবে। এ ছাড়া করোনা মোকাবিলায় নতুন ২ হাজার চিকিৎসক, ৬ হাজার নার্স এবং ৭৩২ জন স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ দেওয়া হবে। এদের জন্য আসছে বাজেটে ৫০০ কোটি টাকা রাখা হচ্ছে।

করোনা মোকাবিলায় বিশেষ বরাদ্দ : চলতি অর্থবছর করোনা মোকাবিলা, বিভিন্ন দেশ থেকে ভ্যাকসিন কেনা বাবদ সরকার ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছে। করোনা এখনো চোখ রাঙাচ্ছে। তাই আগামী বাজেটেও পৃথক ১০ হাজার কোটি টাকা থোক বরাদ্দ রাখা হবে।

করপোরেট করে ছাড় : করোনার সময় ব্যবসা-বাণিজ্য টিকিয়ে রাখতে করপোরেট করে ছাড় দিতে পারে সরকার। শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত নয় এমন কোম্পানির করপোরেট করহার ৩০ শতাংশ করা হতে পারে। এটি এখন সাড়ে ৩২ শতাংশ। সম্প্রতি কোম্পানি আইন সংশোধন করে এক ব্যক্তির নামে কোম্পানি খোলার সুযোগ দিয়েছে সরকার। এ ধরনের কোম্পানির করহার ২৫ শতাংশ করা হতে পারে। আর শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির করহারও কিছুটা কমানো হতে পারে।

কালো টাকা সাদা করার সুযোগ থাকছে : অর্থমন্ত্রী আগেই ঘোষণা দিয়েছেন যত দিন কালো টাকা থাকবে তত দিন সাদা করার সুযোগ দেওয়া হবে। তাই আগামী অর্থবছরেও কালো টাকা সাদা করার সুযোগ থাকছে। তবে তা ঢালাওভাবে থাকবে না। এলাকা-আয়তন ভেদে নির্দিষ্ট পরিমাণ কর দিয়ে কালো টাকায় ফ্ল্যাট বা ভবন কেনার সুযোগ থাকতে পারে। এ ছাড়া ১০ শতাংশ কর দিয়ে নগদ বা ব্যাংকে রাখা টাকা সাদা করার সুযোগ অব্যাহত রাখা হতে পারে।

সামাজিক নিরাপত্তা খাতের আওতা বাড়ছে : ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতা বাড়ছে। তবে ভাতা বাড়বে না সব কটি খাতে। বাজেটে এ খাতে ১ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে। এটি মোট বাজেটের প্রায় ১৭ দশমিক ৫ শতাংশ। নতুন বাজেটে প্রথমবারের মতো দেশের ১৫০ উপজেলার সব বয়স্ক মানুষ ও বিধবা নারীকে ভাতা দেওয়া হবে। এ ১৫০ উপজেলার প্রত্যেক বিধবা ও স্বামীপরিত্যক্তাকে ভাতার আওতায় আনা হচ্ছে। এতে সুবিধাভোগীর সংখ্যা বেড়ে ২৪ লাখ ৭৫ হাজারে দাঁড়াবে। আগামী বাজেটে নতুন করে রয়েছে ১৮ লাখ অসচ্ছল প্রতিবন্ধী, প্রায় ৮ লাখ দরিদ্র মায়ের জন্য মাতৃত্বকালীন ভাতাভোগী, প্রায় ৩ লাখ ল্যাকটেটিং ভাতাভোগী মায়ের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। এ ছাড়া বাজেটে হিজড়া, বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর মানোন্নয়নে সুবিধাভোগীর সংখ্যা ৯৫ হাজারে উন্নীত করা হবে। নতুন বাজেটে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতার পরিমাণ ১২ হাজার থেকে বাড়িয়ে ২০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হচ্ছে। করোনা মহামারীর ফলে সরকারের পরিচালন ব্যয় বেড়েছে। যার ফলে আগামী বাজেটে সরকারের পরিচালন ব্যয় বা অনুন্নয়ন ব্যয় বাড়িয়ে ধরা হচ্ছে ৩ লাখ ৬১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। চলতি বছরের বাজেটে পরিচালন ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৪৮ হাজার ১৮০ কোটি টাকা। সে তুলনায় আসছে বছরে পরিচালন ব্যয় বাড়বে প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা। আর আবর্তক ব্যয় ধরা হচ্ছে ৩ লাখ ২৮ হাজার ৮৪০ কোটি টাকা। এর মধ্যে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ বাবদ ব্যয় ধরা হচ্ছে ৬২ হাজার কোটি টাকা। আর বিদেশি ঋণের সুদ ব্যয় ধরা হচ্ছে ৬ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা। প্রথমবারের মতো বাজেট ঘাটতি ৬ দশমিক ২ শতাংশে যাচ্ছে। এর অন্যতম কারণ সরকারের আয় কমে যাওয়া। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে সরকারের রাজস্বে ধস নেমেছে। যার ফলে আগামী বছরের বাজেটে অনুদান ছাড়া বাজেট ঘাটতি ধরা হচ্ছে প্রায় ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। বিশাল পরিমাণ এ বাজেট ঘাটতি অর্থায়নে সরকার বরাবরের মতো এবারও বিদেশি ও অভ্যন্তরীণ উৎস বেছে নিয়েছে। অবশ্য এবার অভ্যন্তরীণ উৎসের নির্ভরতা কিছুটা কমিয়ে বৈদেশিক উৎসের প্রতি নির্ভরতা বাড়ানো হচ্ছে। আসছে বছরে অভ্যন্তরীণ খাত থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৫৩ কোটি টাকা। অভ্যন্তরীণ খাতের মধ্যে ব্যাংকব্যবস্থা থেকে সরকার ঋণ নেবে ৭৬ হাজার ৪৫২ কোটি টাকা। আর জাতীয় সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেবে ৩২ হাজার কোটি টাকা। অন্যান্য খাত থেকে নেওয়া হবে ৫ হাজার ১ কোটি টাকা। বাজেটে বিদেশি উৎস থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৯৭ হাজার ৭৩৮ কোটি টাকা। বৈদেশিক উৎস থেকে ঋণ পাওয়ার যে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে তা-ও এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ। সূত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন।

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

জুন / ০৩ / ২০২১
০১:২৯ পূর্বাহ্ন

আপডেট : জুন / ১৭ / ২০২১
১২:৪৮ অপরাহ্ন

অর্থনীতি