সেপ্টেম্বর / ২৮ / ২০২১ ০১:০৬ অপরাহ্ন

শাহিদ হাতিমী

সেপ্টেম্বর / ০৭ / ২০২১
০৫:৫৪ অপরাহ্ন

আপডেট : সেপ্টেম্বর / ২৮ / ২০২১
০১:০৬ অপরাহ্ন

রাজনীতিতে ফিরলেন মাওলানা রাজাগঞ্জী: উচ্ছ্বসিত জমিয়ত



102

Shares

দীর্ঘ ২০ বছর নিরব থাকার পর ফের নিজ আঙ্গিনায় সরব হলেন মাওলানা মুখলিসুর রহমান রাজাগঞ্জী। হ্যা, ইসলামী রাজনীতির কথাই বলছি। মাওলানা মুখলিসুর রহমান রাজাগঞ্জী একাধারে প্রাজ্ঞ রাজনীতিবিদ, বিজ্ঞ সংগঠক, শেকড় সন্ধ্যানী লেখক, ইতহাস-ঐতিহ্য গবেষক ও খ্যাতিমান আলেমে দ্বীন। দীর্ঘ পটপরিক্রমার স্বাক্ষী মাওলানা রাজাগঞ্জী রাজনীতিতে ফিরায় উচ্ছ্বসিত জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, যুব জমিয়ত ও ছাত্র জমিয়তের নেতারা।

সোমবার  (৬ সেপ্টেম্বর ২০২১) আকাবির আছলাফের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ (রাজনৈতিক দল হিসেবে নিন্ধন নং-২৩) এর সদস্য সনদ লাভ করেন তিনি। অর্থাৎ মরহুম সভাপতি ও মহাসচিব যথাক্রমে- আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ি রাহ. ও আল্লামা নূর হোসাইন কাসিমী রাহ. এর জীবদ্দশায় প্রকাশিত-ছাপাকৃত এবং তাঁদের স্বাক্ষরিত জমিয়তের ফরম পুরণের মধ্যদিয়ে সদস্য পদ নবায়ন করেছেন মাওলানা রাজাগঞ্জী। সোমবার  দিবাগত রাত ১২টার দিকে ফেসবুকে যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতা-সাংবাদিক মাওলানা রুহুল আমীন নগরীর টাইমলাইনে মাওলানা রাজাগঞ্জী রাজনীতিতে ফিরার এমন সংবাদ প্রথম প্রকাশ হয়। এতে মুহুর্তে তা ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেশ-বিদেশে। আসতে থাকে অভিনন্দনের ঢেউ।

মাওলানা মুখলিসুর রাহমান রাজাগঞ্জী সিলেটের একজন বিশিষ্ট আলেম । সুনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জামিয়া আয়শা সিদ্দিকা মাদরাসার মুহতামিম। তিনি ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ'র প্রতিষ্ঠাকালীন সিলেট জেলা শাখার সভাপতি। মাওলানা মুখলিসুর রাহমান রাজাগঞ্জী জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর সদস্য ফরম নবায়নকালে উপস্থিত ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, প্রবীণ রাজনীতিক অধ্যক্ষ হাফিজ আব্দুর রহমান সিদ্দিকী, জমিয়তের ত্যাগী নেতা ও শায়খুল ইসলাম ইন্টারন্যাশনাল জামেয়ার প্রিন্সিপাল হাফেজ মাওলানা সৈয়দ সালিম কাসেমী, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমীন নগরী, ছাত্র জমিয়তের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা, বিশিষ্ট লেখক-সাংবাদিক হাফিজ মাওলানা শাহিদ হাতিমী। সদস্য ফরম নবায়নে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখেন মাওলানা রাজাগঞ্জীর দীর্ঘকালের ঘনিষ্ট বন্ধু অধ্যক্ষ হাফিজ আব্দুর রহমান সিদ্দিকী।

জমিয়তে ফের তৎপর হওয়া প্রসঙ্গে মাওলানা মুখলিসুর রাহমান রাজাগঞ্জী জানান আমিসিবসময় জমিয়তে ছিলাম । আমাকে কখনো কেই অব্যহতি দেয়নি, আমিও নেইনি। তবে জোট-ননজোট বিষয়ে কয়েক বছর সাংগঠনিক দায়-দায়িত্ব থেকে দূরে থেকেছি। এখন জমিয়ত নারী নেতৃত্বাধিন কোনো রাজনৈতিক জোটে নেই , তাই তৎপর হয়েছি। সংগঠনের নিয়ম নীতির আলোকে কাজের স্বার্থে সদস্য ফরম নবায়ন করেছি। এ ছাড়াও মাওলানা মুখলিসুর রাহমান রাজাগঞ্জী রাজনীতিতে ফেরায় কিছু সমালোচনা এবং পর্যালোচনা যখন তুঙ্গে তখন তিনি তাঁর নিজ নামীয় ফেসবুক আইডিতে "ভুল বুঝাবুঝির অবসান" শিরোনামে এক চমৎকার অভিমত পেশ করেন। দৈনিক জৈন্তা বার্তার পাঠকদের জন্য সেই স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হল-


ভুল বুঝাবুঝির অবসান : মুখলিসুর রাহমান রাজাগঞ্জ-

আমি জমিয়তে ছিলাম, আছি, থাকবো ইনশাআল্লাহ। ১৯৮৯ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর, সিলেট জামেয়া মাহমুদিয়া সোবহানিঘাট মাদ্রাসায় সদরে জমিয়ত হযরত শায়খে কৌড়িয়া রাহ, এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মজলিসে শূরার অধিবেশনে সর্বপ্রথম জমিয়তের সদস্য ফরম পুরণ করে সিলেট জেলা কমিটির সদস্য মনোনীত হই। এর পর থেকে অদ্যাবধি আমার জমিয়তের সদস্যপদ বিলুপ্ত হয়নি।

১৫-০২- ২০০২ তারিখে আমাকে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কমিটির মজলিসে শুরা থেকে অব্যাহতি দেয়ার পর পুনরায় ২৭-০৯-২০০২ তারিখে আবার কেন্দ্রীয় জমিয়তের মজলিসে শুরায় নিয়োগ বহাল করা হয়েছে। হ্যাঁ মধ্যখানে "জমিয়তে উলামা বাংলাদেশ" নামক অনিবন্ধিত অরাজনৈতিক ননপারলেমেন্টারী সংগঠনে সময় দিয়েছি। এতে কেউ কেউ মনে করছেন। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম থেকে বাদ দেয়া হয়ে গেছে। বিষয়টি আদৌ এরকম নয়। এরকম কোনো রেজোলেশন, বিবৃতি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের অফিসে নেই। কারণ এই দুই সংগঠন সাংবিধানিকভাবে পরস্পর বিরোধী নয়। শুধু নামের কিছু অংশে মিল থাকায় কেউ কেউ এরকম মনে করতে পারেন।

তদানীন্তনকালে অনাকাঙ্ক্ষিত কিছু কিছু বয়ান বক্তব্য পরস্পর বিরোধী হোয়ার কারণে অনেকেই এই দুই সংগঠনকে বিপরীতমুখি হিসাবে দাড় করিয়েছেন। যা আদৌ কারো কাম্য ছিলোনা। উদাহরণ স্বরূপ অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সদস্যরাই তো আবার রাজনৈতিক যেকোনো সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে কাজ করে যাচ্ছেন; যা আমাদের সামনে প্রতীয়মান। এই অনুভূতি ও উপলব্ধিতার কারণে আমি জমিয়তে উলামা বাংলাদেশে শরিক থেকেও এপর্যন্ত জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কর্মতৎপরতায় মাঝে মধ্যে অংশগ্রহণ অব্যাহত রেখেছি; যা সংশ্লিষ্ট সকলের জানা আছে। বিশেষত নেটদুনিয়ায় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সম্পর্কে আমার লেখালেখির বিচরণ সম্পর্কে সর্বমহল ওয়াকিবহাল আছেন।
তাই নিচে প্রদর্শিত ৬-৯-২১ তারিখে আমার জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের ফরম ফিলাপ করার অর্থ কখনো নতুন করে জমিয়তে যোগদান নয়। বরং ইহা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নিয়ম অনুযায়ী সদস্য ফরম নবায়ন মাত্র।

গতকাল থেকে এই নিউজটি ভাইরাল হোয়ার পর থেকে দৃশ্যমান হচ্ছে। অনেকেই এই ভুল বুঝাবুঝিতে রয়েছেন। তাই এই ভুল বুঝাবুঝির অবসান কল্পে আমার এই চেষ্টা আশাকরি বিষয়টি পরিষ্কার হয়েছে। মহান আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে দ্বীনে ইসলামের সহিহ খেদমতের জন্য কবুল করুন আমিন।

শাহিদ হাতিমী

সেপ্টেম্বর / ০৭ / ২০২১
০৫:৫৪ অপরাহ্ন

আপডেট : সেপ্টেম্বর / ২৮ / ২০২১
০১:০৬ অপরাহ্ন

রাজনীতি